বাংলাদেশে ব্যবসায়িক সুযোগ, সম্ভাবনা ও আইনী বিষয়ঃ বেশ সুবর্ণ সময় এখন, এদেশে ব্যবসা করার জন্য! বিডা সহ আরো যে সমস্ত কতৃপক্ষ আছেন তারা চেষ্টা করছেন এদেশের বিনিয়োগ দৃশ্যপটে পরিবর্তন আনার। এদেশে ব্যবসা করা তিনটা কারণে খুবই সহজ ; বিদেশী যে কেউ এখানে ব্যবসা করতে পারেন সহজেই। মিনিমাম কোন ইনভেস্টমেন্ট রিকোয়ারমেন্ট নেই ; সহজলভ্য শ্রম এবং ব্যবসায়িক পরিবেশ – এই তিনের মিশেলে যে কোন বিনিয়োগকারীর জন্যই এদেশ স্বর্গ হিসেবে বিবেচিত হতে পারে। এদেশে স্টার্টআপ সিনারিও বেশ কয় বছর যাবত বেশ প্রমিজিং একটা অবস্থানে আছে। নিত্য-নতুন ই-কমার্স কোম্পানি আমরা দেখছি, বেশ কাঠখড় পোহানোর পর একেকটা কোম্পানি দাঁড়ায়। যে কোন ব্যবসা বা স্টার্টআপ শুরুর আগেই ব্যবসার কিছু খুঁটিনাটি অবশ্যই জানতে হয় ; জানতে হয় পাবলিক লিমিটেড কোম্পানি বা প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানি, জয়েন্ট ভেঞ্চার বা আরো বিবিধ ধারণা রাখতে হয়। এদেশে বিনিয়োগ রিজাইম এখন বেশ আকর্ষণীয় ; চাইলেই শতভাগ বিদেশি মালিকানার কোম্পানি এখানে করা সম্ভব। প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানিতে ২ জন থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ ৫০ জন সদস্য থাকতে পারেন; পরিচালক থাকেন ২ জন। পাবলিক লিমিটেড কোম্পানিতে কমপক্ষে ৭ জন সদস্য লাগে ;সর্বোচ্চ কোন বাঁধা ধরা নিয়ম নেই। আসুন একবার দেখে নিই ; ব্যবসা করার জন্য এদেশে সবচেয়ে উত্তম সেক্টর কোনগুলোঃ * টেক্সটাইল সেক্টর, ফ্রোজেন ফুড, পাটপণ্য * সফটওয়্যার কোম্পানি, আউটসোর্সিং কোম্পানি * তেল-গ্যাস-কয়লা-বিদ্যুৎ * ভ্রমণ, কৃষি, এগ্রো টেক *ফুড প্রসেসিং, ই-কমার্স, ক্ষুদ্র শিল্প * শিক্ষা, এডুটেইনমেন্ট, স্বাস্থ্য ইত্যাদি। তবে কিছু সেক্টর আছে যেগুলোতে পূর্ব অনুমতি নিতে হয়, যেমনঃ * গভীর সমুদ্রে মৎস আহরণ * ব্যাংক, ইন্স্যুরেন্স, টেলিকম *স্যাটেলাইট চ্যানেল *তেল,গ্যাস,খনিজ নিষ্কাশন * ভিওআইপি/ আইপি সার্ভিস সহ আরো বেশ কিছু ক্ষেত্রে যথাযথ কর্তৃপক্ষের অনুমতি বাধ্যতামুলক। প্রাইভেট বা পাবলিক লিমিটেড কোম্পানী ছাড়াও শাখা অফিস,লিয়াঁজো অফিস, লোকাল ফ্র্যাঞ্চাইজিং এর মাধ্যমেও এদেশে ব্যবসা পরিচালন বেশ সহজ। বিডার অনুমতি সাপেক্ষে যে কোন কোম্পানি উপরোক্ত যে কোন পন্থায় ব্যবসা আরম্ভ করতে পারেন ; তবে প্রথাগত ফুল ফরম্যাট কোম্পানির চেয়ে এসব একটু আলাদা। তবে গড়পরতা আইনী বিষয়াদি মোটামুটি একইরকম। এই দেশে ব্যবসায়িক পরিবেশের উন্নয়নে সরকার, বিনিয়োগ বোর্ড, বিডা বেশ আন্তরিক। রেড টেপিজম দূরীকরণে যুগোপযোগী পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। ডুয়িং বিজনেস ইনডেক্সে অগ্রগতির লক্ষ্য হাতে নেয়া হয়েছে। দেশে বিনিয়োগ রিজাইম যে কোন সময়ের চেয়ে ভালো অবস্থানে আছে। আর ব্যবসা-বিনিয়োগে আইনী দিক পরিপালনকে আসলেই হেলা করার সুযোগ নেই। ব্যবসার গোড়াপত্তন থেকে শুরু পাততাড়ি গুটানো ( winding বা অবসায়ন) পুরো বিষয়টি আসলে আইনী জালে ঘেরা। বিনিয়োগে সমৃদ্ধি ও বিনিয়োগ কাঠামো এবং ব্যবসায়িক সুশাসন -অনেকটা কর্পোরেট আইনেরই বিবর্ধিত রুপ। লিগ্যাল সলিউশন বিডি আপনাদের ওয়ান স্টপ লিগ্যাল সলিউশন হাব হিসেবেই থাকতে চায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.